দেখুন ডলার তৈরির কারখানা

ডলার সম্পর্কে কমবেশি আমরা সবাই জানি। তবে ডলার দিয়ে বিভিন্ন দেশে ভ্রমণ ও কেনাকাটা করলেও ডলারের কারখানা হয়তো দেখেনি অনেকে। অ্যামেরিকার বৃহত্তম নোট তৈরির কারখানা, দ্য ব্যুরো অফ এনগ্রেভিং অ্যান্ড প্রিন্টিং (সংক্ষেপে বিইপি)- এর প্রতিষ্ঠা হয় ১৮৬২ সালে, ওয়াশিংটনে৷

প্রবেশমুখ দেখলে মনে হবে কোনো দুর্গে প্রবেশ করছেন৷ ভীষণ উজ্জ্বল, চুনাপাথরের তৈরি বিশাল বিশাল কলাম রয়েছে সেখানে৷

আজ পাঠকদের জানাতে চেষ্টা করবো অ্যামেরিকার বৃহত্তম নোট তৈরির কারখানা, দ্য ব্যুরো অফ এনগ্রেভিং অ্যান্ড প্রিন্টিং (সংক্ষেপে বিইপি) সম্পর্কে।

ডলারের ঘড়ি

এই স্থানটি পরিদর্শন করতে প্রতি বছর প্রায় ১০ লাখ পর্যটক আসেন৷ এখানে বিশাল একটি ঘড়ি ডলার দিয়ে সাজানো রয়েছে৷

সবুজের মহিমা

ডলারের নোটের নিরাপত্তার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং পুরোনো বৈশিষ্ট্য হলো এই সবুজ রঙ৷ এই রঙের ব্যাপারটা ‘টপ সিক্রেট’ এবং পেটেন্ট করা৷ এই যন্ত্রটি ঘণ্টায় ডলারের ১০ হাজার পাতা তৈরি করে এবং এতে ৯৫ ডেসিবেল শব্দ হয়, যা একটা ড্রিল মেশিনের শব্দের সমান৷

নোট শুকানো

নোট শুকাতে সময় লাগে তিন দিন৷ একটা ভল্টে তা সংরক্ষণ করে রাখা হয়৷ প্রতিদিন এখানে ৫৬ কোটি ডলারের নোট তৈরি হয়৷ প্রতি ডলার উৎপাদনে খরচ পড়ে ৩ দশমিক ৬ সেন্ট৷

চার-চোখের নীতি

সর্বোচ্চ নিরাপত্তাবেষ্টিত এলাকায় একটি সাইন দেয়া থাকে, যেটা দেখে বোঝা যায় ঐ এলাকায় একা কারো কাজ করার অনুমতি নেই৷ এখানকার কর্মীদের গড় বেতন বছরে ৯৩ হাজার মার্কিন ডলার৷

চূড়ান্ত নম্বর

ডলার তৈরির সবশেষ পর্যায় হলো, প্রতিটি নোটে সিরিয়াল নম্বর দেয়া৷ এই স্ট্যাম্পিং মেশিনের সাহায্যে (ছবিতে) হাত দিয়ে নম্বর ঠিক করা হয়৷

শিপিংয়ের জন্য প্রস্তুত

অন্য একটি মেশিনের সাহায্যে গণনা, আলাদা করা এবং বান্ডেল করা হয়৷ ১০টি করে বান্ডেল প্লাস্টিক ব্যাগে মোড়ানো হয়৷ একজন কর্মী প্যাকেটগুলো ট্রলিতে করে নিয়ে যায়৷ যতক্ষণ না এগুলো কেন্দ্রীয় ব্যাংকে পৌঁছায় এবং সিরিয়াল নম্বর দেখে প্রকাশ করা হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত এগুলোর কোনো মূল্য নেই৷

কঠোর নিরাপত্তা

বিইপি-র নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকে ২ হাজার কর্মী৷ প্রিন্টিং মেশিন বন্ধ হয় সেন্সরের মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে বা লাল বোতাম টিপে৷