সিরিয়ায় হামলার হুমকি ফ্রান্সের

<h1>সিরিয়ায় হামলার হুমকি ফ্রান্সের</h1>

সিরিয়ায় সরকার রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে সিরিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এই হুশিয়ারি দিয়েছেন। মঙ্গলবার এক বক্তব্যে এ হুশিয়ারির পাশাপাশি তিনি এ কথাও বলেন, প্যারিস এখন পর্যন্ত সিরিয়া সরকারের রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের কোনো প্রমাণ পায়নি। তিনি বলেন, ‘রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের ক্ষেত্রে একটি সীমা নির্ধারণ করা আছে। যদি আমরা প্রমাণ পাই, রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে, তাহলে যেখানে রাসায়নিক অস্ত্র বানানো হচ্ছে, আমরা সেখানে হামলা চালাব।’ খবর বিবিসির।

এর আগে ফ্রান্সের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পারলি শুক্রবার এক সাক্ষাৎকারে বলেন, দামেস্ক সিরিয়ার জনগণের ওপর রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে এমন তথ্য নিশ্চিতকারী কোনো দলিল প্যারিসের হাতে আসেনি। যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা সিরিয়ার বিভিন্ন রাসায়নিক হামলার জন্য দামেস্ক সরকারকে দায়ী করার চেষ্টা করছে। বিশেষ করে ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশের খান শেইখুন এলাকায় চালানো রাসায়নিক হামলার জন্য সিরিয়া সরকারকে দায়ী করার জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে ওয়াশিংটন। ওই হামলায় অন্তত ১০০ মানুষ নিহত হয়। এর প্রতিক্রিয়ায় পরদিনই দেশটির একটি বিমানবন্দর লক্ষ্য করে ৬৩টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

সিরিয়া সরকার শুরু থেকে এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করে এসেছে। তবে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, উগ্র জঙ্গিগোষ্ঠীগুলো সিরিয়া ও ইরাকে বহুবার রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগ করেছে। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, মার্কিন মদদপুষ্ট সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে সিরিয়া সরকারের উল্লেখযোগ্য বিজয় থেকে গণদৃষ্টিতে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য বাশার আল-আসাদ সরকারের বিরুদ্ধে রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগের অভিযোগ আনছে ওয়াশিংটন ও তার মিত্ররা।

তথ্য সূত্রঃ যুগান্তর