প্রেমে বাধা, তরুণকে কুপিয়ে হত্যা

<h1>প্রেমে বাধা, তরুণকে কুপিয়ে হত্যা</h1>

কুষ্টিয়ার মিরপুরে প্রেমে বাধা দেওয়ায় উজ্জ্বল হোসেন (২৪) নামের এক তরুণ তাঁর প্রেমিকার ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় ছুরিকাঘাতে আহত হন প্রেমিকার মা সাফিয়া খাতুন ও চাচাতো ভাই শাহজাহান আলী। পুলিশ উজ্জ্বলকে আটক করেছে।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার পোড়াদহ ইউনিয়নের বালিয়াশিশা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত তরুণের নাম আবদুল্লাহ শেখ (২০)। তিনি ওই এলাকার মহাম্মদ আলম আলী শেখের ছেলে। তিনি কুষ্টিয়া ইসলামীয়া কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পোড়াদহ এলাকার মহাম্মদ আলম আলী শেখের মেয়ে আসমা খাতুনের সঙ্গে কয়েক বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল সদর উপজেলার হাতিয়া গ্রামের খবির উদ্দিন শেখের ছেলে উজ্জ্বল হোসেনের। উজ্জ্বল কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের ছাত্র। আসমা খাতুনও একই কলেজে পড়েন। ছয় মাস আগে উজ্জ্বল হোসেন আসমাদের বাড়িতে যান। এ সময় আসমার পরিবারের লোকজন তাঁকে মারধর করেন।

আসমার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, আসমার পরিবারের লোকজন বিষয়টি মেনে না নেওয়ায় আসমা উজ্জ্বলের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন না। এরপরও উজ্জ্বল আসমা ও তাঁর বাড়ির লোকজনের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো করার চেষ্টা চালিয়ে আসছিলেন।

আজ বুধবার বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে উজ্জ্বল আসমাদের বাড়িতে যান। এ সময় বাড়ির বারান্দায় তাঁর সঙ্গে আবদুল্লাহর বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে সেখানেই উজ্জ্বল ছুরি বের করে আবদুল্লাহকে কোপাতে থাকেন। আবদুল্লাহকে বাঁচাতে তাঁর মা সাফিয়া খাতুন ও চাচাতো ভাই শাহজাহান এগিয়ে এলে তাঁদেরও ছুরিকাঘাত করা হয়।

মিরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে প্রথম আলোকে বলেন, এলাকাবাসীর সহায়তায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে উজ্জ্বল হোসেনকে আটক করেছে। আবদুল্লাহর লাশটি কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

তথ্য সূত্রঃ প্রথম আলো